একজন ড. আহমদ আবদুল কাদের

ব্যারিষ্টার নাজির আহমদ ||

ড. আহমদ আবদুল কাদের (বাচ্চু – তাঁর ডাক নাম)। “বাচ্চু ভাই” নামে সর্বাদিক পরিচিত, বিশেষ করে আশির দশকের গোড়ার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তথা বাংলাদেশের অনেক সাধারণ ছাত্রদের মুখে মুখে যে নামটি ছিল। চেহারা ও বেশবুশায় মনে হবে কওমির একজন বড় আলেম! অথচ কওমি মাদরাসায় কোন দিন তিনি লেখাপড়া করেননি, করেননি পড়াশুনা কোনদিন আলীয়াতেও। তারপরেও ছিলেন তিনি উঁচুমানের একজন ইসলামী চিন্তাবিদ ও লেখক! প্রায় ৩৫টি বই লিখেছেন যার প্রায় ২৭টি ইতিমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে। লিখেছেন বিভিন্ন জার্নাল ও জাতীয় দৈনিকে শতাধিক বিশ্লেষনধর্মী প্রবন্ধ ও কলাম।

শুনে আশ্চর্য হবেন আপাদমস্তক আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত ড. আহমদ আবদুল কাদের ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত (কলেজ থেকে অনার্স বা পাশ কোর্স করে ঢাবিতে ভর্তি হয়েছেন এমন নয়) ও মেধাবী ছাত্র। তাঁর এলাকার প্রাথমিক ও পরে মাধ্যমিক স্কুল থেকে এসএসসি এবং পরবর্তীতে ঐতিহ্যবাহী কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে এইচএসসি পাশ করে ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে। কৃতিত্বের সাথে পাশ করেন বিএ (অনার্স) ও এমএ। সেই ৮২ সালে সোনার হরিন খ্যাত বিসিএস পরীক্ষায় চুড়ান্তভাবে পাশ ও মনোনীত হবার পরও সরকারী চাকুরীতে যাননি। তাঁর সমসাময়িক অনেকে যারা বিসিএস ক্যাডারে যোগ দিয়েছেন তাঁরা পর্য়াক্রমে প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্য়ায়ে পৌঁছে ৫/৭ বছর আগে অবসরে চলে গেছেন।

মেধাবী ছাত্র হবার পাশাপাশি ড. আহমদ আব্দুল কাদের ছিলেন একজন দক্ষ ও অনলবর্শী এবং অগ্নিঝরা বক্তৃতায় পটু ছাত্রনেতা। তাঁর বক্তৃতার আর্ট ছিল স্বতন্ত্র ও ব্যতিক্রম। তখনকার ছাত্রনেতা সর্বজনাব মাহমুদুর রহমান মান্না, আখতারুজ্জামান, জিয়াউদ্দিন বাবলু ও ওবায়েদুল কাদের সাহেবদের জানা কোন মাপের ছাত্রনেতা ছিলেন ড. আহমদ আব্দুল কাদের। তাঁর মেধার ব্যাপারেও তাঁর সমসাময়িক ছাত্ররা (যারা পরবর্তীতে স্বনামধন্য প্রফেসর ও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হয়েছেন – যেমন প্রফেসর মুজাহিদুল ইসলাম, শাবিপ্রবির সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. মুসলেহ উদ্দিন তারেক প্রমুখ) ভাল করে জানেন।

ড. আহমদ আব্দুল কাদের সাহেবের সাথে মোট তিনবার আমার সাক্ষাত হয়েছে – দু’বার লন্ডনে ও একবার আশির দশকে বাংলাদেশে। দু’বার সৌজন্য সাক্ষাত হলেও একবার লন্ডনে অনেকক্ষণ কথাবার্তা হলো ও একসাথে চা এবং সিঙ্গাড়া খেলাম। কথাবার্তায় তাঁকে মনে হয়েছে মেধাবী, সহজ-সরল, অমায়িক ও চিন্তাশক্তির অধিকারী ব্যক্তিত্ব। ব্যক্তিগতভাবে পড়াশুনায় অভ্যস্থ থাকায় বিভিন্ন আঙ্গিকের ও লেখকদের লেখা ও বই আমি সাধারণত: পড়ে থাকি। সেই সুবাদে তাঁর পত্রিকায় লেখা কলাম ও কয়েকটি বই আমি পড়েছি। লেখাগুলো বেশ তথ্যবহুল ও বিশ্লেষনধর্মী।

ড. আহমদ আবদুল কাদের সাহেব বর্তমানে একজন রাজনীতিবিদ, একটি রাজনৈতিক দলের শীর্ষস্থানীয় নেতা। কিন্তু আমি তাঁর দল আমি করি না। বস্তুত: বাংলাদেশের কোন দলই আমি করি না বা কোন দলের সদস্য আমি নই। ড. আহমদ আবদুল কাদের সাহেবের দল তাঁর ব্যাপারে তাদের দলীয় বক্তব্য দিবেন। তাঁর দলকে এবং দলের কন্ট্রিভিউশনকে দেশের জনগণ মূল্যায়ন করবে। কিন্তু ব্যক্তি ড. আহমদ আবদুল কাদেরকে আমি দেখেছি ও জেনেছি ভিন্নভাবে। বর্তমান প্রজন্মের অনেকে জানেনা সত্তর দশকের শেষ ও আশির দশকের গোড়ার দিকের ড. আহমদ আবদুল কাদেরকে। গতকাল গ্রেফতার হয়েছেন ড. আহমদ আবদুল কাদের। আমি তাঁর আশু মুক্তি কামনা করি।

লেখক : লন্ডন প্রবাসী