‘গ্রেফতার সকল শ্রমিকদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে মুক্তি দিতে হবে’

ডেইলি সিগনেচার : বৈশ্বিক মহামারী মরণঘাতী নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে শ্রমিকের কষ্টার্জিত উপার্জন দিয়ে কেনা এসব বাহন দ্রুত সময়ের মধ্যে শ্রমিকদের ফেরত দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাবেক এমপি আ ন ম শামসুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান।

তারা বলেন, আমরা অবিলম্বে শ্রমিকদের ওপর সকল ধরনর নির্যাতন নিপীড়ন ও গ্রেফতার বন্ধের দাবি জানাচ্ছি। গ্রেফতার সকল শ্রমিকদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে মুক্তি দিতে হবে। শ্রমজীবী মানুষের ওপর রাষ্ট্রীয় বাহিনীর জুলুম-নিপীড়ন বন্ধ করতে হবে। শ্রমিক নেতাকর্মীদের শুধু গ্রেফতার করেই ক্ষান্ত হয়নি পুলিশ, মেহনতিদের রুটি রোজগারের উৎসগুলো নিয়ে গেছে। আমরা জানতে পেরেছি শ্রমিকদের পাঁচটি ব্যাটারিচালিত ভ্যান, একটি অটোরিকশা, তিনটি ইজিবাইক, একটি সিএনজি, পাঁচটি মোটরসাইকেল ও দু’টি বাইসাইকেল জব্দ করেছে।

আজ (৩ মে) সোমবার বিকালে ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতারা সিরাজগঞ্জের সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়নের খাগা গ্রামে ফেডারেশনের সদর উপজেলা শাখার উদ্যোগে মহান মে দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা থেকে পুলিশ পাঁচজন শ্রমিককে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদে এক যৌথ বিবৃতিতে তারা এসব কথা বলেন।

তারা বলেন, মহান মে দিবস শ্রমিকের ন্যায্য অধিকার আন্দোলনের স্মারক। সারা বিশ্বে এ দিনটি যথাযথ মর্যাদায় উদযাপিত হয়ে থাকে। মহান দিন উদযাপনে শ্রমিক সংগঠনের আলোচনা সভা থেকে পাঁচজন সাধারণ শ্রমিককে গ্রেফতার করে পুলিশ মহান দিনটিকে অবমাননা করেছে। পবিত্র মাহে রামাদান মাসে শ্রমিকদের গ্রেফতার করে সরকার অন্যায় আচরণ করেছে। আমরা প্রতিনিয়ত লক্ষ্য করছি শ্রমিকদের যেকোনো ন্যায্য অধিকারের আন্দোলন সরকার রাষ্ট্রীয় বাহিনীকে ব্যবহার করে থামিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। শ্রমজীবী মানুষের প্রতি রাষ্ট্রীয় বাহিনীর জুলুম-নিপীড়ন ক্রমাগতভাবে বেড়েই চলছে। অবিলম্বে শ্রমজীবী মানুষের প্রতি রাষ্ট্রীয় বাহিনীর জুলুম-নিপীড়ন বন্ধ করতে হবে।

তারা আরো বলা হয়, মহামারী করোনার সময়ে দেশের প্রায় সাড়ে সাত কোটি শ্রমজীবী মানুষের জীবন জীবিকা নির্বাহ দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে। সরকারের উচিত ছিল শ্রমজীবী মানুষের ঘরে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে শ্রমিকদের সমস্যা সমাধানে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। অন্য দিকে শ্রমিকের ওপর অব্যাহতভাবে নির্যাতন নিপীড়ন চালাচ্ছে। কিছু দিন আগে সরকারের নির্দেশনায় চট্টগ্রামের বাঁশখালীর কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে রাষ্ট্রীয় বাহিনী গুলি চালিয়ে অন্তত সাতজন রোজাদার শ্রমিককে নির্মমভাবে হত্যা করেছে।