বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে ভয়াবহ সময় অতিক্রম করছে : ফখরুল

ডেইলি সিগনেচার : বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বাংলাদেশ দুই দানবের হাতে পড়েছে। একটা দানব হচ্ছে- আমাদের এই সরকার, ‍যারা অন্যদেশের স্বার্থ হাসিল করছে। আরেকটা দানব হচ্ছে- করোনাভাইরাস। এর মধ্যেই আমাদের দলকে, সংগঠনকে শক্তিশালী করতে হবে। আল্লাহর কাছে হাজার শুকরিয়া আদায় করি, এখন পর্যন্ত আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মহোদয়ের নেতৃত্ব পাচ্ছি। আমরা আমাদের সমস্ত নেতৃবৃন্দকে ঐক্যবদ্ধ রেখে কাজ করতে পারছি এবং জনগণ আমাদের সঙ্গে আছে। এত অত্যাচার, এত নির্যাতন-নিপীড়নের পরেও এখন পর্যন্ত বিএনপি থেকে কেউ চলে যায়নি। এটা অবশ্যই আনন্দের সংবাদ।

আজ (১৭ এপ্রিল) শনিবার দুপুরে ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আশু রোগমুক্তি কামনা এবং সাবেক সাংসদ ও বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলীকে ফিরে পাওয়ার দাবিতে ‘সিলেট বিভাগ জাতীয়তাবাদী সংহতি সম্মেলনী-ঢাকা’ আয়োজিত এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজ বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে ভয়াবহ সময় অতিক্রম করছে, এত কঠিন সময় এদেশে মানুষ কখনও অতিক্রম করেনি। অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে হরণ করে দেশকে গণতন্ত্রবিহীন করে জনগণের অধিকার কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। এই অবস্থার প্রেক্ষিতে আজ সবচেয়ে প্রয়োজন ছিল ইলিয়াস আলীর মতো সাহসী নেতাকে। আমি বিশ্বাস করি ইলিয়াস আলী যে প্রজন্ম থেকে এসেছিলেন তার পরের প্রজন্ম যারা আসবে তারা অবশ্যই বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে রক্ষা করার জন্য আরও বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে।

তিনি বলেন, ইলিয়াস আলী আমাদের জন্য প্রেরণা’। বাংলাদেশের রাজনীতিতে এই নিখোঁজ হওয়া, গুম করে দেওয়ার ঘটনা ইলিয়াস আলীকে দিয়ে শুরু হয়েছে। এটা করেই প্রথমে বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদী শক্তিকে দুর্বল করার চেষ্টা করা হয়েছে। লক্ষ্য করে দেখবেন বাংলাদেশের এই পরিস্থিতিতে আমরা যারা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে একটা পরিবর্তন আনার চেষ্টা করছি তাদের কিন্তু একইভাবে নির্যাতন-নিপীড়ন করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের পক্ষে যারা কথা বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীন অস্তিত্ব নিয়ে যারা কথা বলেন তাদের আজ অত্যন্ত সচেতনভাবে, পরিকল্পিতভাবে শূন্য করে দেওয়া হচ্ছে, নিখোঁজ করে দেওয়া হচ্ছে অথবা আটকিয়ে রাখা হচ্ছে। আমরা বিশ্বাস করি, আমাদের অন্যান্য ছেলেরা যারা হারিয়ে গেছে, নিখোঁজ হয়েছে তারাও ফিরে আসবে । যদি তারা ফিরে না আসে তাহলে তাদের এই চলে যাওয়া বা নিখোঁজ হওয়ার মধ্য দিয়ে শক্তি সঞ্চয় করবে বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম। ভবিষ্যতে তারা বাংলাদেশকে মুক্ত, স্বাধীন দেশে পরিণত করতে সক্ষম হবে।