ভারত আর “র” ইসরায়েলের মদদ দাতা : ডা. জাফরুল্লাহ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, গত কয়েকদিন যাবত গাজায় শিশু ও মানুষ হত্যা, নির্মমতা, নিষ্ঠুরতা চলছে আমরা কোনো প্রতিবাদই করতে পারি নাই এবং অন্তত একটা সিম্বলিক প্রতিবাদ ও করি নাই। মুসলিম রাষ্ট্র কেউ কেউ ইহুদিদের নির্মমতায় নীরব, এ সময়ে যদি মুসলিম রাষ্ট্রের নিজেদের ঝগড়া ভুলে গিয়ে এক হয়ে ইয়াহুদীবাদ সন্ত্রাসী অবৈধ দখলদার ইসরায়েলের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো ও দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়া যেত। শিশু ও সংবাদ মিডিয়া তারা কাউকে বাদ দেয় নাই। ইসরায়েলের মদদ দাতা ভারত আর “র”। মোসাদের যন্ত্রপাতি অস্ত্র কারা ব্যবহার করছে এ ব্যাপারে কেউ প্রশ্ন তুলছেন না।

রবিবার (১৬ মে) দুপুরে ফারাক্কা দিবস উপলক্ষে ভার্চুয়াল নাগরিক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ভাসানী অনুসারী পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য জাহাঙ্গীর আলম মিন্টুর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের নির্বাহী চেয়ারম্যান, পরিবেশবিদ ও জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. জসিম উদ্দিন আহমেদ (কানাডা), জাতিসংঘের সাবেক পানি বিশেষজ্ঞ ড. এস আই খান প্রমুখ।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, নানাভাবে অন্যায় অবিচারের মূল সূত্র জনবিচ্ছিন্ন সরকার ক্ষমতায় ঈদের আগে গণপরিবহন বন্ধ রাখা ছিল ভুল সিদ্ধান্ত। এতে মানুষ অবর্ণনীয় কষ্ট ভোগ করছে। ঈদের সময় মহিলারা ঝুলে ঝুলে বাড়ি যায়। এত বড় অন্যায় কোনদিন হয় নাই। সরকারকে বলছি আপনারা ভুল করছেন। ভুলের পর ভুল করছেন। সরকারের উচিত হবে ইন্টার ডিস্ট্রিক্ট বাস-ট্রেন চালু করা, বিনা পয়সায় ঢাকায় ফেরানোর ব্যবস্থা করা এবং ঢাকায় ফেরা প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য টেস্টের ব্যবস্থা করা। তাহলে মাওলানা ভাসানীর মতো মহানুভবতার পরিচয় দেওয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন সময় যারা আমরা মওলানা ভাসানীর মতো ভারতের আগ্রাসন এ নির্মমতা নিয়ে আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন তারা আজ ভার্চুয়াল আলোচনায় অংশগ্রহণ করায় আমি আপনাদের সবাইকে সাধুবাদ জানাই। আজ আমি বলতে চাই, মওলানা ভাসানী নিজের দেশের সংস্কৃতি, স্বার্থ নিয়ে মজলুম জনগণের সমস্যা নিয়ে সোচ্চার ছিলেন। অন্যদিকে পৃথিবীর বিভিন্ন যায়গায় অন্যায় অবিচারের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন। আজ অন্তরে মওলানাকে ধারণ করে আমরা এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি।